আল্প আর্সালান

রিভিউ আল্প আর্সালান এপিসোড ৬০

Review Alparslan Episode 60 in Bangla

সিরিজের সিজন ১ ও ২ এর  প্রধান চরিত্রে “Bariş Arduç ” সেলজুকের ২য় সলতান, “সুলতান আল্প আর্সলান” এর চরিত্রে অভিনয় করেছেন। “Kayra Zabcı” সিরিজের সেফেরিয়া সুলতান, সুলতান আল্প আর্সলানের স্ত্রী এবং আমীর আর্সলান ইউসুফের বড় কন্যার চরিত্রে অভিনয় করেছেন।”Mehmet Özgür” সিরিজের নিজামুলমুলক (হাসান বে) এর চরিত্রে অভিনয় করে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রেখেছেন।”Barış Bağcı” সেলজুক সাম্রাজ্যের প্রতিষ্টাতা সুলতান তুঘরুল বে’র চরিত্রে অভিনয় করেছেন।” Erdinç Gülener”


আল্প আর্সলান, কাভুর্ত বে, ইয়াকুতি বে, সোলেমান, গেভের হাতুনের বাবা চাঘরি বে’র চরিত্রে অভিনয় করেছেন।”Korel Cezayirli” আল্প আর্সলানের ভাই সোলেমানের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। “Toprak Sergen” বাইজেন্টাইন টেকফুর, টেকফুর কাতাকেলন ​​কেকাউমেনোস চরিত্রে অভিনয় করেছেন “Serhat Tutumluer”  টেকফুর গ্রেগরের চরিত্রে অভিনয় করেছে।”Kaan Yalçin” কিরামানপর আমীর, সেলজুকে মেলিক আল্প আর্সলানের ভাই হিসাবে কাভুর্ত বে’র চরিত্রে অভিনয় করেছেন।

“Ayşegül Ünsal” আল্পাঘুতের মা আকিনায় হাতুনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। “Burak Şafak” আভার বে’র চরিত্রে অভিনয় করেছেন। “Onur Aycelik” আর্তুক বে’র চরিত্রের অভিনয় করেছেন। “Ozgur Çevik” কন্ট লিওনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। “Uygar Özçelik” ইব্রাহিম ইনাল বে’র চরিত্রে অভিনয় করেছেন। আরও কিছু গুরুত্বপূর্ন  চরিত্র হলো আকচা হাতুন, ফ্লোরা হাতুন গেভের হাতুন, সেলজান হাতুন ইত্যাদি।

সিজন-২ শুরু হয় আল্প আর্সলানের  হজ্ব করার মাধ্যমে। তারা ইব্রাহিম ইনাল বে এবং এরবাস্কানের বাবার হত্যাকারী আরসালান ইউসুফের বিরুদ্ধে লড়াই করে। ইউসুফের জীবন বাঁচানোর জন্য সুলতান তুঘরুল আল্প আর্সলানকে আদেশ দেন, আর্সলান ইউসুফের কন্যা সেফেরিয়া হাতুনকে বিয়ে করার জন্য। যা সেফেরিয়া  বা আল্প আর্সলান কেউই চায় নাই।

অপর দিকে ইনাল গোপনে শত্রুদের কাছে স্টিল বিক্রি করার চেষ্টা করার জন্য বন্দী করা হয়, যা এরবাস্কান বলেছিলেন।সেফরিয়া এই বিয়ে চায় না,  তাই সে আল্প আর্সলানকে তার কাঁধে ছুরিকাঘাত করে। আল্প আর্সলান তাকে বিয়ে করে এবং ধীরে ধীরে তাদের প্রেম গড়ে ওঠে। আর্সলান ইউসুফ সেফেরিয়ার দুঃখে বিশ্বাসঘাতক হয়ে উঠে।

সেফেরিয়া তার স্বামীকে ভালবাসতে শুরু করে। আর্সলান বেসাসিরি আসে এবং ইনালের সাথে জোট গঠন করে। তুঘরুল এবং চাঘরি তার বড় সৎ ভাইদের ঘৃণার জন্য ইনাল বিশ্বাসঘাতক হয়ে ওঠে। আল্প আর্সলানের ভাই সোলায়মান টেকফুর গ্রেগরের মেয়ে ফ্লোরার প্রেমে পড়েন। চাঘরি  বে মারাত্মকভাবে আহত হয় কিন্তু অল্প সময়ের মধ্যেই মারা যায়। সেফেরিয়া তার স্বামীকে ভালোবাসে। গ্রেগর তাকে ধরে ফেলে এবং আল্প আর্সলানকে ছেড়ে দিতে চায়

ভাসপুরকান ও সুরমারি চাই। আল্প আর্সলান সেফেরিয়াকে বাঁচায়। কুতালমিস বে যে কিনা ইনাল বে’র সাথে একত্রিত হয়েছিল, টেকফুর গ্রেগরের ছেলে আলেকজান্ডারকে হত্যা করেছিল।এদিকে সেফেরিয়া  ছেলে মেলিকশাহ জন্ম হয়। কন্ট লিওন হঠাৎ উপস্থিত হয়। ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে সোলায়মানকে উত্তরাধিকারী ঘোষণা করা হয়।পরে দেখা গেল, জালাল, প্রাসাদের বেসাসিরির গুপ্তচর আসলে আলতুনকান হাতুনের মৃত ছেলে,জালাল সুলতানকে হত্যা করার চেষ্টা করে, কিন্তু আলতুনকান হাতুন তাকে হত্যা করে এবং বিষণ্নতায় পড়ে, তার মৃত্যু হয়। সুলতান তুঘরুলও অসুস্থ হয়ে পড়েন, এবং তার উজির,


আমিনুলমুলক, সোলায়মানকে অস্থায়ী সুলতান হিসাবে সিংহাসনে বসান। আল্প আর্সলান সুলতান তুঘরুলের উইল খুঁজে পান যা বলে যে, আল্প র্সলান সুলতান তুঘরুলের পরে সুলতান হবেন। অনেক কষ্টের পর, এবং আলপাগুত শহীদ হওয়ার পরে, সেফেরিয়া গর্ভে শিশুকে হারায়। কুতালমিস আল্প আর্সলানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে এবং মারা যান।এত কিছুর পর, আল্প আর্সলান অবশেষে সুলতান হন সোলেমান এবং ফ্লোরা পালিয়ে যায়।

কাভুর্তর ছেলে মেরদান একজন সমস্যা সৃষ্টিকারী এবং সে শীঘ্রই বিশ্বাসঘাতকতা করে এবং তার শত্রু কান্ট লিওনের সাথে একত্রিত হয়। কাভুর্ত বে সব জানার পরও ভান করে থাকে। অবশেষে আল্প আর্সলান তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। কাভুর্ত বে তখন আল্প আর্সলানের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেন এবং ক্ষমতা গ্রহণ করেন। সুলতান আল্প আর্সলানের বড় ভাই আমীর ইয়াকুতি বে আসেন। আল্ল আর্সালন জেনারেল দিয়োজানের বিরুদ্ধ যুদ্ধ করে তাকে হত্যা করে এবং এ্যানিকে জয় করে। more

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button